পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা যেভাবে করবেন জেনে নিন

 পাইলস কিংবা অর্শ আসলে এমন এক ধরনের  টি রোগ যেটা আসলে  পুরুষ কিংবা মহিলাদেরকে প্রভাবিত করে থাকে আসলে এরকমের  অবস্থায় দেখা  তখনই যায় যখন,মলদ্বার এর রক্তনালী এর   উপর অতিরিক্ত পরিমানে  চাপ এর  কারণেই আসলে মূলত  এই রোগটা  দেখা যেতে পারে 


পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা যেভাবে করবেন জেনে নিন
Pixaby and canva




এই রোগের ব্যথা যা সহ্য করা কিন্তু অনেকটাই  কষ্টকর ব্যাপার একটা মলদ্বার এর  চারপাশে শিরাগুলির প্রদাহ এর  কারণেই কিন্তু আসলে মূলত  পাইলস বিকাশ ঘটে থাকে অভ্যন্তরীণ আর বাহিরের টি ধরন এর  পাইলস  আছে  


অভ্যন্তরীণ অর্শ্বরোগ   শিরা গুলি এর  ফোলা দেখা যায় না কিন্তু তার পরে   অনুভূত হয়ে থাকে , তবে বহিরাগত অর্শ্বরোগ   এই ফুলে    যাওয়াটা  কিন্তু মলদ্বার এর  ঠিক বাইরে দেখা গিয়ে থাকে পাইলস  যদি হয় তাহলে আপনাদের  মলদ্বার   যন্ত্রণা, রক্ত-ক্ষরণ হতে থাকবে  আর তার সাথে সাথে  ব্যথাসহ  এই ধরনের অনেক লক্ষণ দেখা যাবে আপনাদের  শরীরে  কিন্তু  পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা করার মাধ্যমে কিন্তু এর নিরাময় আপনারা খুব সহজেই করে ফেলতে পারবেন  

 

পাইলস এর  উপসর্গ গুলি দেখা গেলে কিন্তু খুব  সহজেই  বুজে ফেলা যায়   মলদ্বার   অতিরিক্ত পরিমানে  ব্যথা আর তার অরে  পরবর্তীতে  রক্তপাত এর সঙ্গে অনেক সময়তেই জ্বালা কিন্তু আসলে টি কমন লক্ষণ এইটা হলে আর এর কারনে কিন্তু মলদ্বার ফুলে যেতে পারে পাইলস হলে কিন্তু আপনারা আয়ুর্বেদিক ঔষধ গ্রহন করেও এর থেকে   মুক্তি পেতে পারবেন  

 

পাইলস কি?

পাইলস হচ্ছে মলদ্বার এর  আসেপাশে  ত্বক এর  পাইলস হচ্ছে  মলদ্বার এর  চারপাশ এর  ত্বক এর  নিচে শিরা গুলি এর  গুচ্ছ, যা টি শ্রেণিতেই  শ্রেণিবদ্ধ করে নেওয়া যেতে পারে প্রথম, মলদ্বার এর  ভিতরেই আর দ্বিতীয় মলদ্বার এর  বাহিরে।

 

সাধারণত ভাবে  মানুষদের  মলের সাথে সাথে  রক্ত  পড়াকে কিন্তু মূলত পাইলস  ভেবে থাকেন তারা   যদি বা  বাস্তব  অর্থ হচ্ছে যে  অর্শ  কিংবা পাইলস আক্রান্ত ৩০ শতাংশ   রোগী  যারা রয়েছেন তাদের  মল এর সাথে  রক্ত পড়তে থাকে আর বাকি ৭০ শতাংশ রোগী যারা রয়েছেন তাদের  জ্বালা, চুলকানি আর তার সাথে সাথে  কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো  লক্ষণ দেখতে পাওয়া যায়

 

পাইলসের  ঘরোয়া চিকিৎসা :-


ত্রিফলা চূর্ণঃ


কোষ্ঠকাঠিন্য হচ্ছে পাইলস  পাওয়ার  আসল কারণ।  আর তাই আপনাদেরকে কিন্তু  কোষ্ঠকাঠিন্য  দূর করার জন্য অবশ্যই  ত্রিফলা গুঁড়ো  নিয়মিতভাবে আপনাদের গ্রহণ করা দরকার   আর তার পাশাপাশি কিন্তু এটা আপনাদের  পাইলস রোগ এর  বর্ধন  রোধ করে দিতে সক্ষম হবে   প্রত্যেকদিন  ঘুমাতে  যাওয়ার আগে আপনারা  উষ্ণ গরম  পানিতে  গ্রাম ত্রিফলা  গুঁড়ো মিশিয়ে তারপর এটা খেলে কিন্তু অনেক উপকার পাবেন আপনারা পাইলসের  ঘরোয়া চিকিৎসা এটা কিন্তু আসলে অনেকটাই ম্যাজিক এর  মতো কাজ  করে থাকে বলা যায়  

হিং :-


হিং পাইলস রোগী যারা রয়েছেন তাদের জন্য কিন্তু  ডায়েটে  নিয়মিতভাবে  যোগ  করে নেওয়াটা আসলে দরকার   এটা কিন্তু নিয়মিত   শাকসবজি এর ভিতর খাওয়া যাবে অথবা আপনারা কিন্তু এটা পানিতে মিশিয়ে তারপরেও খেতে পারেন ইচ্ছে করলে। হিং  একটা  ভারতীয় মশলা  যেটা কিন্তু রান্নার সাথে সাথে হজমশক্তি উন্নত  করে থাকে আর তার সাথে সাথে  পাইলস  নিরাময় করতে অনেক  সাহায্য  করে থাকে  

 

ফাইবার সমৃদ্ধ খাবারঃ


ভাল হজম এর   জন্য কিন্তু আসলে একটা ফাইবার সমৃদ্ধ   খাবার আসলে অত্যন্ত দরকারী একটা বিষয়।  আপনারা কিন্তু চাইলে আপনাদের  ডায়েটে আঁশযুক্ত  খাবার রাখতে পারেন যেমন ধরুন  পুরো শস্য রাখতে পারেন , তাজা ফল আর  সবুজ শাকসব্জি  আপনাদের খাবারের তালিকা কিন্তু রাখতে পারেন যোগ করে   আর তাছাড়া আপনারা ফলের রস এর পরিবর্তে ফল খেতে পারেন   খাবার সময় আপনারা কিনতে চাইলে সালাদ  হিসেবে  মূলা  খেতে পারেন মূলা পাইলস এর  সমস্যা  থেকে কিন্তু মুক্তি দিয়ে থাকে  


প্রচুর পরিমাণে জল খানঃ

পাইলসের  চিকিৎসার  একটি ভাল পদ্ধতি হচ্ছে কিন্তু পানি খাওয়াটা আগের থেকে বাড়ানো স্বাস্থ্যকর ডায়েট এর  সাথে সাথে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করার মাধ্যমে কিন্তু আপনাদের অন্ত্রের গতিবেগ উন্নতি  করাটা সম্ভব হয়ে যাবে   প্রচুর পরিমাণে পানি পান করলে কিন্তু কোষ্ঠকাঠিন্য  পত্রিয়ত করে আর তার সাথে সাথে আপনাদের পাইলসের সমস্যা  হতে   রেহাই পেতে পারবেন।  যেকোনো ধরনের সমস্যা  প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ করাই বুদ্ধিমানের কাজ   এটাই তো প্রত্যেকদিন আপনারা পানি খাওয়ার মাধ্যমে এই সমস্যা থেকে কিন্তু মুক্তি পেতে পারেনএই সমস্যাটাকে প্রতিরোধ করতে পারেন  

 

ছোট জিরাঃ

ছোট জিরা পেট এর  সমস্যা এর জন্য কিন্তু আসলে অনেকটাই দরকারে জিরা   ভিজিয়ে নেওয়ার  পরে আপনারা   মিছরি  সাথে ভেসে যদি খান তাহলে কিন্তু আপনারা অনেক উপকার পাবেন এটা থেকে।  অথবা আপনারা চাইলে এক চামচ পানিতে আধ চা চামচ জিরা এর  গুঁড়া মিশিয়ে সেটাও পান করতে পারেন  

সালাদঃ

অর্শ কিংবা  পাইলস রোগীযারা রয়েছেন তাদেরকে কিন্তু নিয়মিতভাবে খাওয়ার পরে সালাদ খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে   যেমন ধরুন  শসা, গাজর   গাজরের রয়েছে কিন্তু প্রচুর পরিমাণে  অ্যান্টি- অক্সিডেন্ট  আর তার সাথে সাথে  অ্যান্টি- ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য  গাজরের ভিতরে রয়েছেযেটা কিন্তু আসলে পাইলস  রোগ  নিরাময় করার জন্য অনেকটাই উপকারী আর এই গুলোর ভিতরে কিন্তু ভিটামিন সিআর তার সাথে  কেও রয়েছে  যেটা কিন্তু  শিরা  স্বাস্থ্য এর   উন্নতি করার জন্য অনেকটা  সাহায্য  করে থাকে

 

পাইলসের  ঘরোয়া চিকিৎসায় এই সমস্ত উপাদানগুলো উপরে যেগুলো বললাম এগুলো কিন্তু আপনাদের পাইলস   রোগ নিরাময় করার জন্য অনেকটা সাহায্য করতে পারে তাহলে আপনারা চাইলেই কিন্তু   ডাক্তারদের পরামর্শ নিয়ে  উপরের উপাদান গুলো ব্যবহার করতে পারেন  

তথ্যসূত্র - Progotir Bangla

  

admin

লেখালেখি করতে ভালো লাগলে, আর সে খান থেকেই এই ওয়েবসাইট খোলা ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন